• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৬ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
শিরোনাম :
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্মচারী সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক পল্টুর দূর্নীতি-অনিয়ম তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ, ক্ষুদ্ধ বন্দরের কর্মচারীরা বর্ণাঢ্য আয়োজনে যবিপ্রবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন রানীশংকৈলে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা মোংলায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪ তম জন্মদিন পালন যশোরের শার্শার ডিহিতে গণহারে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছুরিকাঘাতের শিকার (এএসআই) পেয়ারুল ইসলাম মারা গেছেন স্বার্থপর সাধন কুমার দাস ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনি কল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ নড়াইলে মহিলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড!! নড়াইলে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায়  এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত
নোটিশ :
সাপ্তাহিক রেড নিউজ এ আপনাকে স্বাগতম! এখন থেকে আপনারা প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি ২৪ ঘন্টা অনলাইনে খবরা-খবর দেখতে পাবেন। আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ। খালি থাকা সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগ - ০১৭১১-০৫৯৯৮৭

মৃত্যুর ৪ বছর পর যশোর আ’লীগের উপদেষ্টা পদ পেলেন গোলাম রসুল

খন্দকার তরিকুল ইসলাম, যশোর / ৪৪ বার পড়া হয়েছে
আপডেটের সময়ঃ মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট, ২০২১

যশোরের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের ২০ মাস পর সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। গত ৩০ জুলাই ১৯ জন উপদেষ্টাসহ ৯৪ সদস্যের এই কমিটি অনুমোদন দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
তবে অনুমোদিত এই কমিটিতে উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য হিসাবে যায়গা পেয়েছেন চার বছর পূর্বে মারা যাওয়া শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি গোলাম রসুল। তাকে জেলা উপদেষ্টা ম-লীর সদস্য করা হয়েছে।এ ঘটনায় জেলা-উপজেলায় সমালোচনার ঝড় বইছে। ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত কমিটির উপদেষ্টা ম-লীর তালিকায় গোলাম রসুলের নাম ১০ নম্বরে রয়েছে। তার বাড়ি শার্শার গোগা ইউনিয়নে। চার বছর আগে মৃত ব্যক্তিকে পদ দেওয়া নিয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। মৃত্যুর এত বছর পরও সংবাদটি কেন্দ্রীয় কমিটি বা জেলা কমিটির না জানাটা দুঃখজনক  বলে অভিমত অনেকের।

গোগা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বলেন, ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা কমিটির সদস্য গোলাম রসুল মারা গেছে। সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য হিসেবে তার নাম ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। এ ব্যাপারে গোলাম রসুলের ছেলে গোগা ইউনাইটেড আদর্শ কলেজের প্রভাষক ওমর ফারুক বলেন, বাবা দীর্ঘদিন ইউনিয়ন ও উপজেলায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়েছেন। মৃত্যুর চার বছর পর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে পদ পাওয়ার বিষয়টি হাস্যকর।

শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক (দায়িত্বপ্রাপ্ত) ও নাভারণ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ইব্রাহীম খলিল বলেন, মৃত্যুর দীর্ঘদিন পরও কীভাবে মৃত ব্যক্তির নাম কমিটিতে আসলো, তা আমার বুঝে আসছে না।

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন জানান, জেলা আওয়ামী লীগ থেকে কেন্দ্রীয় কমিটিকে চিঠির মাধ্যমে বিষয়টি জানানো হয়েছিল। কোনও কারণে হয়তো চিঠিটা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কাছে পৌঁছায়নি। সে কারণে শার্শার মৃত গোলাম রসুলের নামটি বাদ পড়েনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ