• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:০৫ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
শিরোনাম :
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্মচারী সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক পল্টুর দূর্নীতি-অনিয়ম তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ, ক্ষুদ্ধ বন্দরের কর্মচারীরা বর্ণাঢ্য আয়োজনে যবিপ্রবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন রানীশংকৈলে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা মোংলায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪ তম জন্মদিন পালন যশোরের শার্শার ডিহিতে গণহারে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছুরিকাঘাতের শিকার (এএসআই) পেয়ারুল ইসলাম মারা গেছেন স্বার্থপর সাধন কুমার দাস ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনি কল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ নড়াইলে মহিলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড!! নড়াইলে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায়  এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত
নোটিশ :
সাপ্তাহিক রেড নিউজ এ আপনাকে স্বাগতম! এখন থেকে আপনারা প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি ২৪ ঘন্টা অনলাইনে খবরা-খবর দেখতে পাবেন। আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ। খালি থাকা সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগ - ০১৭১১-০৫৯৯৮৭

কয়রায় ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা স্মৃতি সংসদ’ ভাংচুর

কয়রা(খুলনা)প্রতিনিধিঃ / ৪০ বার পড়া হয়েছে
আপডেটের সময়ঃ রবিবার, ৮ আগস্ট, ২০২১

খুলনার কয়রায় ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব স্মৃতি সংসদ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর করা হয়েছে। শনিবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের হায়াতখালি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে খালের পানি সরবরাহের জন্য বঁাধে পাইপ বসানোকে কেন্দ্র করে স্থানীয় দুই পরিবারের মাঝে সংঘর্ষ হয়। এর জের ধরে হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বর্তমানে ওই প্রতিষ্ঠানটিতে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার মার্কার প্রার্থীর নির্বাচনী অফিস ছিল। গতকাল রবিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় কয়রা উপজেলা প্রেস ক্লাবে উপস্থিত হয়ে কয়রা উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক এবং ইউপি নির্বাচনে মহারাজপুর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ অভিযোগ তুলে ধরেন। লিখিত অভিযোগে তিনি জানিয়েছেন, খুলনা জেলা পরিষদের সদস্য জহুরুল হক বাচ্চু তার নিজস্ব সম্পত্তিতে ২০১৮ সালে ওই প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি তার নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনুমতি নেন। এ অবস্থায় শনিবার রাতে একদল দুর্বৃত্ত সেখানে হামলা চালায় এবং আসবাবপত্র ভাংচুর করে। প্রতিষ্ঠানটির কক্ষে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি টানানো ছিল। হামলার সময় দুবর্ৃত্তরা সেসব ছবিও ছুড়ে ফেলে। বিষয়টি তাৎক্ষনিক স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করলে তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি এ ন্যাক্কারজনক ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত খঁুজে বের করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান। এদিকে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শি সূত্রে জানা গেছে, মহারাজপুর ইউনিয়নের শাকবাড়িয়া খালে পাইপ বসানোকে কেন্দ্র করে ওই এলাকার বিশ্বাস এবং মোড়ল পরিবারের মধ্যে সংঘর্স বাঁধে। এ সময় এক পক্ষ অন্য পক্ষকে ধাওয়া করলে তারা পার্শ্ববর্তি হায়াতখালি বাজারের অবস্থিত বেগম ফজিলাতুন্নেছা স্মৃতি সংসদে আশ্রয় নেয়। পরে প্রতিপক্ষের লোকেরা সেখানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর চালায়। এ সময় ওই প্রতিষ্ঠানের আসবাবপত্রসহ বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি এলোপাতাড়িভাবে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কয়রা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রবিউল হোসেন বলেন, ঘটনার পর পরই সেখানে পরিদর্শন করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করতে অভিযান চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ