• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:১২ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
শিরোনাম :
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্মচারী সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক পল্টুর দূর্নীতি-অনিয়ম তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ, ক্ষুদ্ধ বন্দরের কর্মচারীরা বর্ণাঢ্য আয়োজনে যবিপ্রবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন রানীশংকৈলে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা মোংলায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪ তম জন্মদিন পালন যশোরের শার্শার ডিহিতে গণহারে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছুরিকাঘাতের শিকার (এএসআই) পেয়ারুল ইসলাম মারা গেছেন স্বার্থপর সাধন কুমার দাস ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনি কল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ নড়াইলে মহিলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড!! নড়াইলে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায়  এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত
নোটিশ :
সাপ্তাহিক রেড নিউজ এ আপনাকে স্বাগতম! এখন থেকে আপনারা প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি ২৪ ঘন্টা অনলাইনে খবরা-খবর দেখতে পাবেন। আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ। খালি থাকা সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগ - ০১৭১১-০৫৯৯৮৭

নিয়মিত নামাজ আদায় করে ৯৪ জন শিশু-কিশোর জিতে নিলেন  বাইসাইকেল

মোস্তাকিম ফারুকীঃ / ১০০ বার পড়া হয়েছে
আপডেটের সময়ঃ শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১

 রাজধানীর মিরপুর ডিওএইচএস সেন্ট্রাল মসজিদ কর্তৃপক্ষ বাচ্চাদের জন্য একটি অনন্য উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়েছিল গত মার্চ মাসের ১১ তারিখ।

যে বাচ্চারা পরপর ৪০ দিন নিয়মিত ফজরের নামাজ মসজিদে এসে জামাতের সঙ্গে আদায় করবে তাদেরকে একটি করে সাইকেল উপহার দেওয়া হবে। এ ঘোষণার পর বাচ্চাদের মধ্যে শুরু হয়েছিল নামাজ পড়ার প্রতিযোগিতা।
বাচ্চাদেরকে নামাজের প্রতি উদ্বুদ্ধ করতে এ উদ্যোগ নিয়েছিল মিরপুর ডিওএইচএস সেন্ট্রাল মসজিদ কমিটি। নিয়মিত ৪০ দিন ফজরের নামাজ পড়লেই বাচ্চারা পাবে নতুন ব্র্যান্ডের এ সাইকেল।নিয়মিত ৪০ দিন ফজরের নামাজ আদায়ের এ ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণ আহ্বান করার পর ১৪৪ জন শিশু ৪০ দিনের এ ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণে রেজিস্ট্রেশন করেছিল।মসজিদ কমিটির ঘোষণা ছিল, এখানে উপহার সেই বাচ্চারাই পাবে যারা ৪০ দিনের মধ্যে ১ দিনও বাদ দেবে না। ৪০ দিনের মধ্যে যদি ১ দিনও বাদ পড়ে যায় তাহলে আবার প্রথম থেকে শুরু করতে হবে।এসব শর্ত পূরণ করে ৯৪ জন শেষ পর্যন্ত টিকে ছিল।তাদের প্রত্যেককেই নতুন সাইকেল প্রদান করেছে সমাপনী অনুষ্ঠানে।
উক্ত সমাপনী অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন,মিরপুর ডিওএইচএস সেন্ট্রাল মসজিদের সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খোরশেদ আলম। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মাহফুজুল হক। তিনি তার বক্তব্যে বলেন,উদ্যোগটা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এই কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রত্যেককে তিনি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। বিশেষ করে মিরপুর ডিওএইচএস এলাকার মধ্যে তিনটি রিয়েলস্ট্রিট কোম্পানি রয়েছে যারা সাইকেল ক্রয়ের ব্যাপারে অর্থায়ন করেন। কোম্পানি তিনটি হল একমি, হোম-৭১ ও নীডস ডেভলপমেন্ট ।
উক্ত মসজিদ কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য লায়ন ইঞ্জিনিয়ার মোস্তুফা কামাল বলেন, বিশাল বড় মসজিদ আজ নামাজ আদায়কারী মানুষে পরিপূর্ণ। এই কাজটা বাস্তবায়ন খুব একটা সহজ ছিল। আমরা শুধু সাইকেল উপহার প্রদানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলাম না। প্রতিদিন বাচ্চারা নামাজ আদায় করলে তাদের হাজিরার ব্যবস্থা করা হত এবং হাজিরা শেষে সবাইকে বিভিন্ন রকমের চকলেট, আইসক্রিম দেওয়া হয়। বিভিন্ন চকলেট কোম্পানি ও আইসক্রিম কোম্পানি যারা সহযোগিতা করেছে তাদের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, ছোটবেলা আমরা যে অভ্যাস গঠন করি সারাজীবন সেভাবেই জীবন পরিচালনা করে থাকি। তাই আমার মনে হয় এই বাচ্চাগুলো জীবনে কোনদিন নামাজ ত্যাগ করবে না এবং নামাজ আদায় করা তাদের জন্য অবশ্যই কর্তব্য বলে মনে ধারণ করবে।
মসজিদে সালাত আদায়ে উদ্বুদ্ধকরণে ৯৪ জন কিশোরকে উপহারস্বরুপ সাইকেল প্রদান অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফজলু,মেজর রবসহ সেনাবাহিনীর অনেক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মসজিদ কমিটির সদস্য এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।অনুষ্ঠান শেষে বাচ্চাদের হাতে সাইকেলের চাবি দিয়ে দেওয়া হয় এবং প্রত্যেকে নিচ থেকে যার যার সাইকেন নিয়ে যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটা কোম্পানির পক্ষ থেকে প্রত্যেক বাচ্চার অভিভাবককে একটি করে টি-শার্ট ও নামাজ শিক্ষা বই উপহার দেওয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ