• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০২ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
শিরোনাম :
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্মচারী সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক পল্টুর দূর্নীতি-অনিয়ম তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ, ক্ষুদ্ধ বন্দরের কর্মচারীরা বর্ণাঢ্য আয়োজনে যবিপ্রবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন রানীশংকৈলে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা মোংলায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৪ তম জন্মদিন পালন যশোরের শার্শার ডিহিতে গণহারে টিকা নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছুরিকাঘাতের শিকার (এএসআই) পেয়ারুল ইসলাম মারা গেছেন স্বার্থপর সাধন কুমার দাস ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনি কল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ নড়াইলে মহিলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড!! নড়াইলে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায়  এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত
নোটিশ :
সাপ্তাহিক রেড নিউজ এ আপনাকে স্বাগতম! এখন থেকে আপনারা প্রিন্ট ভার্সনের পাশাপাশি ২৪ ঘন্টা অনলাইনে খবরা-খবর দেখতে পাবেন। আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ। খালি থাকা সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দেওয়া হবে। যোগাযোগ - ০১৭১১-০৫৯৯৮৭

সড়কের বেহাল দশা, ভোগান্তিতে  লাখো মানুষ

আজহারুল ইসলাম মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি নেত্রকোনা / ৬৩ বার পড়া হয়েছে
আপডেটের সময়ঃ শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১

 নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলার মোহনগঞ্জ-মদন সড়কের মানশ্রী নয়াপুকুর পাড় থেকে রামজীবনপুর হয়ে জয়পুর পর্যন্ত ৭ কিলোমিটার সড়কের এই দশা তিন বছর ধরে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন ওই এলাকার লাখো মানুষ।
এছাড়া এই সড়কটি জয়পুর পার হয়ে আটপাড়া উপজেলার বাউসা বাজার হয়ে মদন শহরের সাথে গিয়ে মিলিত হয়েছে। মদন থেকে মোহনগঞ্জ পর্যন্ত চলাচলের সহজ সড়ক এটি। প্রতিনিয়ত স্থানীয়দের পাশাপাশি বিভিন্ন উপজেলার হাজার হাজার মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। তবে বেহাল দশার কারণে এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে মানুষের অতিরিক্ত সময় ও অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। সাথে পোহাতে হচ্ছে ভোগান্তি।
মদন উপজেলার সাকের খান বলেন, এই সড়কে কম সময়ে মোহনগঞ্জ যাওয়া যেত। কিন্তু সড়কের কয়েক কিলোমিটার জায়গা ভেঙে যাওয়ার কারণে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দ্রুত এ সড়কটি সংস্কার করার দাবি জানাচ্ছি।মোহনগঞ্জ উপজেলার রামজীবনপুর গ্রামের সাইদুর রহমান, পল্লি চিকিৎসক মাহমুদুর রহমান ও ব্যবসায়ী হাদিছ মিয়া বলেন, এই সড়ক দিয়ে তিন উপজেলার মানুষের চলাচল। সেইসাথে আশপাশের ২০-২৫টি গ্রামের মানুষও চলাচল করেন। বিগত ৩ বছর ধরে সড়কের পিচ উঠে গেছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় গর্তের সৃস্টি হয়েছে। এ সড়কে চলাচল করতে গেলে প্রায়ই দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয়। এ সড়কে চলাচলে অতিরিক্ত অর্থ ও সময় ব্যয় হয়।
মোহনগঞ্জ উপজেলার কেওয়ারদীঘি গ্রামের রুপচাঁন মিয়া ও দুলাল মিয়া বলেন,, এ সড়ক দিয়ে উৎপাদিত কৃষি পণ্য, মৎস্য সম্পদ পরিবহন ও বাজারজাত করণে আমাদের ভোগান্তির শেষ নেই। এ সড়কে পণ্য পরিবহন করতে আমাদের পরিবহন ব্যয় বেড়ে যাচ্ছে।
তারা আরো বলেন, সড়কটি সরু হওয়ার কারণে দুটি রিক্সাও ভালমতো পাশাপাশি চলতে পারে না। ফলে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। তাই সংস্কারের পাশাপাশি এ সড়কটি প্রশস্তকরণ দরকার।মোহনগঞ্জের সমাজ- সহিলদেও ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা আবু শাহীন আকন্দ বলেন,  এ সড়কে চলাচল করতে গেলে কোমর ভেঙ্গে যায়। আমরা সড়কটি দ্রুত সংস্কারের পাশাপাশি প্রশস্তকরণের দাবি জানাচ্ছি।
সমাজ- সহিলদেও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম খান সোহেল বলেন, গত বছর থেকেই এ সড়কটি  সংস্কারের জন্য উপজেলা প্রকৌশলীকে বলে আসছি। কিন্তু সরকারি বরাদ্দ না থাকায় সংস্কার করা যাচ্ছে না।স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) মোহনগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মো.আলমগীর হোসেন বলেন, এ সড়কটি সংস্কারের পাশাপাশি প্রশস্তকরণের জন্য গত বছর বরাদ্দ চেয়ে আবেদন পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। এ বছর আবারো আবেদন পাঠাবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ